রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

‘ভাষাকে কেন্দ্র করে যে রাষ্ট্রের জন্ম হতে পারে তার উদাহারণ বাংলাদেশ’

ছেলেবেলায় কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের দিনগুলোতে বন্ধুদের সাথে হাত ধরে বইমেলার প্রাঙ্গণে প্রবেশ করতেন। পৃষ্ঠা উল্টে নতুন বইয়ের ঘ্রাণ নিতেন। কিন্তু ভারতের মতো একটি দেশের একাধিক মন্ত্রীত্ব, রাষ্ট্রপতির মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলানোর কারণে সময়ের অভাবে বইমেলায় থাকতে পারেন না ঠিকই। কিন্তু মন পড়ে থাকে সেই ছেলেবেলার দিনগুলোর দিকে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্ক’এ অনুষ্ঠিত ৪৩ তম কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলায় তিন দিন ব্যাপী সাহিত্য উৎসবের আনুষ্ঠানিক সূচনা অনুষ্ঠানে এভাবেই ছোটবেলার স্মৃতিচারণ করলেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি।

এসময় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রসঙ্গ টেনে প্রণব মুখার্জি বলেন, ‘একটা লেখায় পড়ছিলাম, আমার যে দুঃখ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও অনেকটা সেইরকমই দুঃখের অংশ নিয়ে বলেছেন যে, এখন আর পারি না, সময় পাই না, নানা বাধায়। কিন্তু মনটা চলে যায় সেই ছেলেবেলার দিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের দিনগুলো দিকে। যখন সকাল থেকে সন্ধ্যাবেলা পর্যন্ত বইমেলায় ঘুরমতাম। বইয়ের পাতা উল্টে দেখতাম। সারাটা দিন বইমেলায় কেটে যেতো।’

নিজে মুখেই তিনি স্বীকার করেন যে ‘আমার মনে পড়ে যে, সরকারি কাজে আটকে না থাকলে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করতে বা কোন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে নয়, কেবল বইমেলার আনন্দে যোগ দিতে বইমেলার ডাকে প্রায় প্রতিবছরই এসেছি। বইমেলায় ঘুরে বেড়াই, বন্ধুবান্ধবদের সাথে দেখা হয়। সেটা একটা অতিরিক্ত পাওনা।’

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতির অভিমত, ‘কলকাতার মানুষ, বাংলার মানুষ বই ভালবাসে। তাই বইমেলায় অংশ নেওয়টা তাদের কাছে খুব স্বাভাবিক ভাবেই সহজাত। আমাদের সকলেরই মানসিকতা একটাই, সেই মানসিকতা হল বইমেলায় আসা।’

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রসঙ্গ টেনে প্রণব বলেন ‘ভাষাকে কেন্দ্র করে যে একটা রাষ্ট্রের জন্ম হতে পারে তার উদাহারণ, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মতো একটি রাষ্ট্রের জন্ম। ৪৮ বছর আগে যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার আন্দোলনে অংশ নিয়েছিলেন তাদের একটাই স্লোগান ছিল- বাংলাকে জাতীয় ভাষা হিসাবে ঘোষনা দিতে হবে। অবশেষে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সেদেশের মানুষের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশের জন্ম হল। আজ সারা বিশ্বে প্রবৃদ্ধি, উন্নয়ন, মুক্ত চিন্তাভাবনা, ধর্মনিরপেক্ষতা ও মানবতার নিরিখে এই দেশ একটা শক্তিশালী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে।’

তিনি জানান, ‘সারা বিশ্বে অন্যতম কথ্য ভাষার মধ্যে একটি হল বাংলা। বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে মিলিয়ে প্রায় ২০ কোটির বেশি মানুষ এই ভাষায় কথা বলেন। এছাড়াও এই দুই বাংলার বাংলা ভাষাভাষী মানুষ সারা বিশ্ব জুড়েই ছড়িয়ে রয়েছেন।’

একই রকম সংবাদ সমূহ

‘ভোমরা স্থলবন্দরকে পূর্ণাঙ্গ বন্দর করা হবে’ : নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী

সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দর উন্নয়ন ও পরিচালনা গতিশীলতা আনয়নের নিমিত্ত গঠিতবিস্তারিত পড়ুন

টিকাদানের সাফল্যে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী

টিকাদানের সাফল্যে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশে টিকাদান কর্মসূচি একটিবিস্তারিত পড়ুন

সর্বজনীন স্বাস্থ্য কর্মসূচির অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার আহ্বান

জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্কে এসেবিস্তারিত পড়ুন

  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হচ্ছে চীন
  • ইউপি নির্বাচন : চেয়ারম্যান-মেম্বারদের শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টি ‘গুজব’
  • বাংলাদেশের নর্দান ইউনিভার্সিটি ও কানাডার কর্টলার ইন্টারন্যাশন্যাল, রেসিন্ট ইন্টারন্যাশন্যালের মধ্যে সমঝোতা চুক্তি
  • চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৭টি পদক লাভ
  • ড. কালাম ‘এক্সিলেন্স এওয়ার্ড’ গ্রহণ করেই দেশবাসীকে উৎসর্গ করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • তৃণমূল থেকে সংগঠনকে গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • মোবাইল ছিনতায়কারীকে দৌড়ে ধরলেন ম্যাজিস্ট্রেট
  • কয়েক ঘণ্টার মধ্যে শোভন-রাব্বানির ভাগ্য নির্ধারণ
  • পরিকল্পিতভাবে উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
  • পুলিশের ব্যাংকের যাত্রা শুরু
  • বিএনপি অর্থ-সম্পদ অর্জনে বেশি ব্যস্ত ছিল: প্রধানমন্ত্রী