মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

জাতীয় প্রেস ক্লাবের নেতৃত্বে আওয়ামীপন্থিরা

জাতীয় প্রেস ক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অধিকাংশ পদে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থক ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাংবাদিক ফোরামের’ প্রার্থীরা।

১৭ সদস্যের এই কমিটিতে মাত্র তিনটি সদস্য পদে জয় পেয়েছে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত ‘জাতীয়তাবাদী ফোরাম’। একজন স্বতন্ত্র পার্থী সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন।

অপরদিকে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও সিনিয়র সহ-সভাপতি, সহ-সভাপতি, দুই যুগ্ম সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ এবং বাকি সদস্য পদ মিলিয়ে ১৩ জন নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থকদের প্যানেল থেকে।

সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন দৈনিক যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম। তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন দৈনিক ইত্তেফাকের ফরিদা ইয়াসমিন।

মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে এক টানা বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলে। ভোট গণনা শেষে রাতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ আলমগীর ফল ঘোষণা করেন।

সভাপতি পদে সাইফুল আলম পেয়েছেন ৬২১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শওকত মাহমুদ পেয়েছেন ৪৩১ ভোট।

সাধারণ সম্পাদক পদে ফরিদা ইয়াসমিনের ৫৬৯ ভোটের বিপরীতে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইলিয়াস খান পেয়েছেন ৪০৬ ভোট। এই পদে অপর প্রার্থী কামরুল ইসলাম চৌধুরী পেয়েছেন ৮২ ভোট।

সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে মো. ওমর ফারুক ৪৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সৈয়দ মেজবাহ উদ্দিন ৪১৪ ভোট এবং কার্তিক চ্যার্টাজি পেয়েছেন ১৫৩ ভোট।

সহ-সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন আজিজুল ইসলাম ভুঁইয়া। তিনি পেয়েছেন ৫৫৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নুরুল হাসান খানের ভোটের সংখ্যা ৪৪৪।

যুগ্ম সম্পাদকের দুই পদে নির্বাচিতরা হলেন- শাহেদ চৌধুরী (৫৯৯ ভোট) ও মাইনুল আলম (৫৫৪ ভোট)। অন্য প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে আবু সালেহ আকন ২৮৩ ভোট, আশরাফ আলী ১৭০ ভোট এবং সাখাওয়াত হোসেন বাদশা ৩৫১ ভোট পেয়েছেন।

কোষাধ্যক্ষ পদে ৫৯৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন শ্যামল দত্ত। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাজী রওনাক হোসেনের ৪০৪ ভোট এবং জহিরুল হক রানা ৫৮ ভোট পেয়েছেন।

নির্বাচিত সদস্যরা হলেন- কুদ্দুস আফ্রাদ (৫১৫), শামসুদ্দিন আহমেদ চারু (৫০৯), রেজোয়ানুল হক রাজা (৪৮৪), শাহনাজ বেগম (৪৬২ ভোট), সানাউল হক (৪৪২ ভোট), কল্যাণ সাহা (৪৩৯ ভোট), জাহিদুজ্জামান ফারুক (৪২৯ ভোট), সৈয়দ আবদাল আহমেদ (৪১৭ ভোট), বখতিয়ার রানা (৪০১ ভোট) ও হাসান আরেফীন (৩৯১ ভোট)।
এদের মধ্যে সৈয়দ আবদাল আহমেদ, সানাউল হক ও বখতিয়ার রানা ছিলেন বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত শওকত মাহমুদ-ইলিয়াস খান প্যানেলে। আর জাহিদুজ্জামান ফারুক ছিলেন স্বতন্ত্র পার্থী।

সাইফুল আলম-ফরিদা ইয়াসমিন নেতৃত্বাধীন প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন আওয়ামী লীগ সমর্থকরা।

গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মুহাম্মদ শফিকুর রহমান সভাপতি ও ফরিদা ইয়াসমিন সাধারণ সম্পাদকসহ তাদের পূর্ণ প্যানেল বিজয়ী হয়েছিল।

এ বছর প্রেস ক্লাবের এক হাজার ২১২ জন ভোটারের মধ্যে এক হাজার ৭২ জন ভোট দিয়েছেন।

একই রকম সংবাদ সমূহ

‘ভোমরা স্থলবন্দরকে পূর্ণাঙ্গ বন্দর করা হবে’ : নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী

সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দর উন্নয়ন ও পরিচালনা গতিশীলতা আনয়নের নিমিত্ত গঠিতবিস্তারিত পড়ুন

টিকাদানের সাফল্যে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী

টিকাদানের সাফল্যে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশে টিকাদান কর্মসূচি একটিবিস্তারিত পড়ুন

সর্বজনীন স্বাস্থ্য কর্মসূচির অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার আহ্বান

জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্কে এসেবিস্তারিত পড়ুন

  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হচ্ছে চীন
  • ইউপি নির্বাচন : চেয়ারম্যান-মেম্বারদের শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টি ‘গুজব’
  • বাংলাদেশের নর্দান ইউনিভার্সিটি ও কানাডার কর্টলার ইন্টারন্যাশন্যাল, রেসিন্ট ইন্টারন্যাশন্যালের মধ্যে সমঝোতা চুক্তি
  • চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৭টি পদক লাভ
  • ড. কালাম ‘এক্সিলেন্স এওয়ার্ড’ গ্রহণ করেই দেশবাসীকে উৎসর্গ করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • তৃণমূল থেকে সংগঠনকে গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • মোবাইল ছিনতায়কারীকে দৌড়ে ধরলেন ম্যাজিস্ট্রেট
  • কয়েক ঘণ্টার মধ্যে শোভন-রাব্বানির ভাগ্য নির্ধারণ
  • পরিকল্পিতভাবে উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী
  • পুলিশের ব্যাংকের যাত্রা শুরু
  • বিএনপি অর্থ-সম্পদ অর্জনে বেশি ব্যস্ত ছিল: প্রধানমন্ত্রী