সোমবার, এপ্রিল ২২, ২০২৪

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

কলারোয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের ‘মেটে ঘর’

কলারোয়া উপজেলায় হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের সেই ‘মাটির ঘর’ বা ‘মেটে ঘর’।

এখন দিন যতই যায় আধুনিকতার ছোয়ায় বিলুপ্তির পথে মাটির ঘরবাড়ি। সচারাচার দেখা-ই যায়না একসময়ের অবশ্যম্ভাবী মাটির ঘর স্থানীয়ভাবে যাকে বলা হতো মেটে ঘর বা মেটি ঘর। বর্তমানে যুগের সাথে তালমিলিয়ে আরাম আর আয়েশ মেটাতে ইট-পাথরের পাঁকা ঘরবাড়ি তৈরি করছেন মানুষজন। গ্রামবাংলার সেই সব ঐতিহ্যবাহী মাটির ঘর ভেঙে নির্মান হচ্ছে পাঁকা দালানকোঠা।

বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা ও জানা যায়- বর্তমানে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হাতে গোনা কয়েকটি মাটির ঘরের সন্ধান রয়েছে। বর্তমান প্রজন্মের অনেকের কাছে মাটির ঘর সম্পর্কে ধারণা কম। অনেকে এখন দেখতে আগ্রহ প্রকাশ করে সেই মাটির ঘর। অথচ কয়েক বছর আগেও মাটির ঘর ছিলো প্রতিটি বাড়িতে। একচালা, দো-চালা, তে-চালা ইত্যাদি নামে অভিহিত ছিলো সেই সকল মাটির ঘরের। এক বা একাধিক শোবার ঘরের পাশাপাশি রান্না ঘর, গোয়ালঘরসহ অন্যান্য ঘরও ছিলো মাটির। ছিলো বাড়ির আঙিনায় ধানের গোলা, ডেকিসহ গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের নানান উপকরণ। এসব দিন দিন হারিয়ে যেতে বসেছে, যেন এখন স্বপ্নময় কোন গল্প বা প্রতিচ্ছবি।

বয়সী মানুষেরা কলারোয়া নিউজকে জানান- মাটির ঘরগুলো সাধারণত টালির চাল, বিচুলি বা খড়ের চাল সম্বলিত। পরে টিনের চালও সংযোজন হয়। একটি মাটির ঘরের পাশাপাশি ঘরের সাথে সমানে, দু’দিকে তিনদিকে ও চারদিকে বারান্দা থাকতো। ঘরের মেজে বা ফ্লোর, দেয়াল সবকিছুই মাটি দিয়ে তৈরি করা হতো। ঘরের বারান্দা, সিড়ি বা পটিও ছিলো মাটির। কলারোয়া অঞ্চলের বাইরে ঝিনাইদহ এলাকায় দুইতলা মাটির ঘর দেখা যায়। সেগুলোর একতলা ছাদও মাটি দিয়ে তৈরি করা হতো। এখন যেমন পাকা ঘরবাড়িতে পানি দিয়ে ধোয়ামোছার কাজ করা হয় ঠিক তেমনি মাটির ঘরবাড়িতে কাদামিশ্রিত পানি দিয়ে লেপা হতো বা প্রলেপ দেয়া হতো। গরমের সময় মাটির ঘরের মধ্যে ছিলো অত্যন্ত ঠান্ডা ও আরামদায়ক।

দেখা গেছে- বর্তমানে অবশিষ্ট মাটির ঘর ভেঙ্গে পাকা বাড়িঘর তৈরি করা হচ্ছে। যেগুলো আছে সেগুলোর অবস্থাও নাজুক। প্রত্যন্ত গ্রামের মোড়ে এখনো ছোটখাটো চা/পানের দু’একটি মাটির দোকান চোখে পড়ে।

সবমিলিয়ে মাটির ঘর ধীরে ধীরে ইতিহাসে রূপ নিচ্ছে। প্রতিনিয়ত প্রয়োজনের তাগিদে মানুষ আধুনিকতার ছোয়া গায়ে লাগিয়ে উন্নত থেকে উন্নতর পর্যায়ে পৌছানো চেষ্টা করছে। সেই ফলশ্রুতিতে আজ কলারোয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় গ্রামবাংলার একসময়ের ঐতিহ্য মাটিরঘর বা মেটে ঘর আজ বিলুপ্তির পথে, সচারচার যেনো দেখা-ই যায় না। সেই মেটেঘর আজ স্থান পাচ্ছে ‘স্মৃতি’ হিসেবে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

১৪ জুলাই: যবিপ্রবির ল্যাবে সাতক্ষীরা জেলার ৩০ জন করোনা পজিটিভ!

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারে ১৪ জুলাই,২০২০বিস্তারিত পড়ুন

‘প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে সরকার কাজ করছে’: লুৎফুল্লাহ এমপি

সাতক্ষীরা-১ আসনের সংসদ সদস্য এড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ বলেছেন- ‘করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবেও উন্নয়নবিস্তারিত পড়ুন

কলারোয়ার দমদম বাজার মার্কেটের বহুতল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন

কলারোয়ার দমদম বাজার মার্কেটের বহুতল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করা হয়েছে।বিস্তারিত পড়ুন

  • কলারোয়ায় বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমন
  • কলারোয়ায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার
  • কলারোয়ায় ‘মিনা দিবস’ উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা
  • কলারোয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৩টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
  • কলারোয়ায় দলীলি সম্পত্তি জবরদখল ঠেকাতে সংবাদ সম্মেলন
  • ‘ভূয়া’ সংবাদিকদের দৌরাত্মে সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে
  • কলারোয়ার বেত্রবতী হাইস্কুলে ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানি’ শীর্ষক স্মৃতিচারণ
  • কলারোয়ায় মন্দিরে মন্দিরে দূর্গাদেবীর আবির্ভাব ঘটাতে চলছে রং-তুলির আচঁড়
  • কলারোয়ার জয়নগর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির আহবায়ক কমিটি গঠন
  • সংবাদ প্রকাশের পর আপডেট হলো কলারোয়া প্রশাসনের সরকারি ওয়েবসাইটের তথ্য
  • কলারোয়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সভা অনু্ষ্ঠিত
  • কলারোয়ায় ১নং সীমান্ত পিলার এলাকা পরিদর্শনে ভূমি দপ্তরের বাংলাদেশ-ভারত শীর্ষ কর্তারা