মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২৩

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

কলারোয়ায় অবৈধ ক্লিনিকে অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার নিবন্ধনহীন বেসরকারি ক্লিনিকের ভুল চিকিৎসায় মাহিমা খাতুন (২০) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে।
রোববার সকালে উপজেলার কাজীরহাটে অবস্থিত ‘জননী নার্সিং হোম’ নামক বেসরকারি ক্লিনিকে এই ঘটনা ঘটে।
মৃত মাহিমার বাড়ি কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নের পানিকাউরিয়া গ্রামে। তার স্বামীর নাম মিকাইল।
মাহিমার স্বামী মিকাইল জানান- শনিবার রাতে মাহিমার প্রসব যন্ত্রণা উঠলে তাকে জননী নার্সিং হোমে ভর্তি করা হয়। রোববার সকালে সিজার করার জন্য ডা. মজিদসহ আরও তিনজন অপারেশন থিয়েটারে প্রবেশ করেন।
এর কিছু সময় পর অপারেশন থিয়েটার থেকে উজ্জল নামে এক সহকারী জানায়- আপনার ছেলে সন্তান হয়েছে। এ সময় উজ্জল আর একটা কাগজে কিছু ওষুধ লিখে দিয়ে সেগুলো পাশের দোকান থেকে আনার জন্য বলে।
পরে ওষুধ নিয়ে এসে তিনি দেখেন তার স্ত্রীকে অ্যাম্বুলেন্সে উঠানো হচ্ছে। তার মুখে অক্সিজেনের মাস্ক পরানো।
এ সময় মাহিমার কি হয়েছে জানতে চাইলে ডাক্তার বলেন- প্রেসার উঠেছে কলারোয়া হাসপাতালে নিতে হবে। কলারোয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তার কলারোয়া হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. শফিকুল ইসলাম জানান, রোগীর অনেক আগেই মৃত্যু হয়েছে।
নিহতের পিতা খোদাবকস বলেন- আমার মেয়েকে অ্যানেস্থেশিয়া ডাক্তার ছাড়াই অপারেশন করেছে। আর পুরোপুরি অজ্ঞান করার কারণে আমার মেয়ের আর জ্ঞান ফেরেনি। ডাক্তার আমার মেয়েকে অপারেশন থিয়েটার থেকে বের করার আগেই চলে যায়। আমি তাকে বারবার মাহিমাকে দেখতে বললেও ডাক্তার দেখেনি। তখন ডাক্তার মাগুরা গিয়ে রোগী দেখবে বলে তাড়াহুড়া করে চলে যায়।
এ বিষয়ে মাগুরা সদর হাসপাতালের ডাক্তার আ. মজিদ বলেন- আমি রোগীকে অপারেশন করে সুস্থ অবস্থায় রেখে এসেছি। পরে শুনেছি রোগীর প্রেসার উঠে যায়। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। অ্যানেস্থেশিয়া ডাক্তার ছাড়া অপারেশন করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এটা ক্লিনিকের ব্যবস্থা করার কথা ছিল কিন্তু তারা সেটি করেনি।
উল্লেখ্য গত ২৯ আগস্ট এই জননী নার্সিং হোমে অভিযান চালিয়ে বৈধ কাগজপত্র ও অ্যানেস্থেশিয়া ডাক্তার না থাকা এবং ক্লিনিকের পরিবেশ মানসম্মত না হওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। একই সাথে ক্লিনিকের সার্বিক বিষয়ে সমস্যা সমাধানের জন্য ১৫দিনের সময় বেধে দেন।
সেই ১৫ দিনের ভেতর প্রসূতির মৃত্যুতে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

একই রকম সংবাদ সমূহ

১৪ জুলাই: যবিপ্রবির ল্যাবে সাতক্ষীরা জেলার ৩০ জন করোনা পজিটিভ!

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারে ১৪ জুলাই,২০২০বিস্তারিত পড়ুন

‘প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে সরকার কাজ করছে’: লুৎফুল্লাহ এমপি

সাতক্ষীরা-১ আসনের সংসদ সদস্য এড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ বলেছেন- ‘করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবেও উন্নয়নবিস্তারিত পড়ুন

কলারোয়ার দমদম বাজার মার্কেটের বহুতল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন

কলারোয়ার দমদম বাজার মার্কেটের বহুতল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করা হয়েছে।বিস্তারিত পড়ুন

  • কলারোয়ায় বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমন
  • কলারোয়ায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার
  • কলারোয়ায় ‘মিনা দিবস’ উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা
  • কলারোয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতে ৩টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
  • কলারোয়ায় দলীলি সম্পত্তি জবরদখল ঠেকাতে সংবাদ সম্মেলন
  • ‘ভূয়া’ সংবাদিকদের দৌরাত্মে সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে
  • কলারোয়ার বেত্রবতী হাইস্কুলে ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানি’ শীর্ষক স্মৃতিচারণ
  • কলারোয়ায় মন্দিরে মন্দিরে দূর্গাদেবীর আবির্ভাব ঘটাতে চলছে রং-তুলির আচঁড়
  • কলারোয়ার জয়নগর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির আহবায়ক কমিটি গঠন
  • সংবাদ প্রকাশের পর আপডেট হলো কলারোয়া প্রশাসনের সরকারি ওয়েবসাইটের তথ্য
  • কলারোয়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সভা অনু্ষ্ঠিত
  • কলারোয়ায় ১নং সীমান্ত পিলার এলাকা পরিদর্শনে ভূমি দপ্তরের বাংলাদেশ-ভারত শীর্ষ কর্তারা