বুধবার, অক্টোবর ২৮, ২০২০

কলারোয়া নিউজ

প্রধান ম্যেনু

সাতক্ষীরার সর্বাধুনিক অনলাইন পত্রিকা

এক বছর পরও নড়াচড়া করে মৃতদেহ!

এক বছর পরও নড়াচড়া করে মৃতদেহ!

মৃত্যুর এক বছর পরও নড়াচড়া করে মানবদেহ- এমনটাই বলছেন অস্ট্রেলিয়ান এক বিজ্ঞানী। সম্প্রতি ‘ফরেনসিক সায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল : সিনার্জি’ জার্নালে এ সংক্রান্ত গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়। খবর ডেইলি মেইল’র।

সাধারণত ধারণা করা হয় মৃত্যুর পরপর বা কয়েক ঘণ্টা পরই মানবদেহের সব ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান এই বিজ্ঞানী ধারনা পাল্টে দিলেন।

বিজ্ঞানী এলিসন উইলসন বলেন, টানা ১৭ মাস ধরে তিনি মৃতদেহের ক্রিয়া নিয়ে গবেষণা ও ছবি তোলেন। তিনি দেখেছেন, মৃতদেহ আসলে শান্ত থাকে না।

কোনো ক্ষেত্রে এমনও হয়েছে, মৃত্যুর সময় এক ব্যক্তির হাত শরীরের সঙ্গে লেপ্টে ছিল। ধীরে ধীরে তা ছড়াতে থাকে। কিছুদিন পর হাতটি শরীর থেকে বেশ দূরে প্রসারিত অবস্থায় দেখা যায়।
অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণ হ্যাম্পশায়ারের একটি ‘বডি ফার্মে’ গবেষণা চালান এলিসন। মূলত মৃত্যুর সঠিক সময় নির্ণয়ে গবেষণা চালান এলিসন।

একই রকম সংবাদ সমূহ

পাকিস্তানে শক্তিশালী ভূমিকম্পে ১৯ জনের মৃত্যু

পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলে শক্তিশালী ৫ দশমিক ৮ মাত্রার ভূমিকম্পের আঘাতে ১৯বিস্তারিত পড়ুন

২৪ ঘণ্টার মধ্যে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় হিক্কা

ধেয়ে আসছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় হিক্কা। এর ফলে ঝড়ের পাশাপাশি ভারীবিস্তারিত পড়ুন

টিকাদানের সাফল্যে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী

টিকাদানের সাফল্যে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশে টিকাদান কর্মসূচি একটিবিস্তারিত পড়ুন

  • সর্বজনীন স্বাস্থ্য কর্মসূচির অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার আহ্বান
  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হচ্ছে চীন
  • ৩য় বারের মতো কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্ততার প্রস্তাব ট্রাম্পের
  • এক রাজার ১০০ স্ত্রী ও ৫০০ সন্তান! (ভিডিও)
  • মুখে মাকড়সা চড়লে ‘রিল্যাক্স’ অনুভূত হয় এই নারীর! (ভিডিও)
  • পানির নিচে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মার্কিন নাগরিকের মৃত্যু
  • মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং নিয়ে হাসপাতালে বৃদ্ধ!
  • ১৩০টির বেশি দেশ ঘুরে বেড়ানো এক অন্ধ পর্যটকের গল্প
  • হেলমেট ঢোকেনি মাথায়, জরিমানা নিতে ব্যর্থ ট্রাফিক পুলিশ!
  • ৪ বছর প্রেম শেষে ৩০০ বছর বয়সী ভূতকে বিয়ে! (ভিডিও)
  • ছাগল চুরির ৪১ বছর পর ধরা পড়ল চোর!
  • যে গ্রামে প্রতিটা বাড়িই দরজাহীন, ব্যাংকে নেই তালা!